ক্যাম্পাস শিক্ষা

আবরার হত্যাকাণ্ড, ময়নাতদন্তের প্রতিবেদনে যা জানা গেল

Dark Mode

432জুমবাংলা ডেস্ক : বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যার ঘটনায় ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন এখন ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) হাতে। গত বুধবার ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগের প্রধান ডা. সোহেল মাহমুদ এ রিপোর্ট ডিবির কাছে হস্তান্তর করেছেন। ডিবির সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় গণমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। ওই কর্মকর্তা বলেন, এখন ক্রিমিনাল ইনভেস্টিগেশন ডিপার্টমেন্টের (সিআইডি) বিশেষজ্ঞ মতামতের জন্য অপেক্ষা করছি। হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় উদ্ধার হওয়া আলামতগুলোর ওপর সিআইডির মতামত পাওয়ার পর যত দ্রুত সম্ভব চার্জশিট প্রস্তুত করা হবে।

ময়নাতদন্তে কী উল্লেখ করা হয়েছে তা ডিবি কর্মকর্তারা জানাতে না চাইলেও আবরারের ময়নাতদন্তকারী ডা. সোহেল মাহমুদ বলেন, আবরার প্রচণ্ড মারধরের শিকার হয়েছেন। এ কারণে তার শরীরের অভ্যন্তরে অনেক রক্তক্ষরণ হয়েছে। তাছাড়া মারধরের কারণে ব্যথা এমন পর্যায়ে চলে গিয়েছিল যে আবরার সহ্য করতে পারছিলেন না। অতিরিক্ত ব্যথা এবং ইন্টারনাল রক্তক্ষরণেই আবরার মারা গেছেন। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আবরারকে প্রচণ্ড মারধর করা হলেও তার শরীরের কোনো হাড় ভাঙেনি। তবে শরীরের বিভিন্ন স্থানে নীলা-ফোলা জখম ছিল।

সিআইডির প্রধান ও অতিরিক্তি আইজিপি চৌধুরী আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, আবরার হত্যার ঘটনাটি অত্যন্ত স্পর্শকাতর। পুলিশের পক্ষ থেকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে এর তদন্ত হচ্ছে। আমি দুই-একদিন হল সিআইডিতে যোগ দিয়েছি। তাই এ সংক্রান্ত সিআইডির কার্যক্রম নিয়ে বিস্তারিত এখনই বলতে পারব না। তবে যতটুকু জানি, আগামী মাসের শুরুতেই এ মামলার চার্জশিট দিতে চায় ডিবি। আমাদের মতামতের জন্য যেন চার্জশিট দিতে দেরি না হয়, এ বিষয়টি নিশ্চয়ই খেয়াল রাখা হবে।

এদিকে হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় এজাহারভুক্ত আসামি তাবাখখারুল ইসলাম ওরফে তানভীর আহম্মেদ এবং অমিত সাহাকে বৃহস্পতিবার ফের তিনদিনের রিমান্ডে নেয়া হয়েছে। পাশাপাশি অপর আসামি হোসেন মোহাম্মদ তোহাকে কারাগারে পাঠানো হয়। রিমান্ড আবেদনের শুনানির সময় অমিত বলেছেন, ‘আমি মিথ্যাভাবে ফেঁসে গেলাম।’

প্রসঙ্গত, ৬ অক্টোবর রাতে বুয়েট শেরেবাংলা হলের ২০১১ এবং ২০০৫ নম্বর হলে নির্মমভাবে পিটিয়ে হত্যা করা হয় আবরারকে। এ ঘটনায় পরদিন ৭ অক্টোবর আবরারের বাবা বরকত উল্লাহ বাদী হয়ে চকবাজার থানায় একটি মামলা করেন। মামলায় ছাত্রলীগ বুয়েট শাখার তৎকালীন সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান রাসেল, সহসভাপতি মুহতাসিম ফুয়াদ এবং সাংগঠনিক সম্পাদক মেহেদী হাসান রবিনসহ ১৯ নেতাকর্মীকে আসামি করা হয়।



জুমবাংলানিউজ/এসআর

সর্বশেষ সংবাদ




আপনি আরও যা পড়তে পারেন


জনপ্রিয় খবর

Add Comment

Click here to post a comment

সর্বশেষ সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

জনপ্রিয় খবর