আন্তর্জাতিক

ইরানে ভয়াবহ হামলার হুমকি দিলেন ট্রাম্প

Screenshot_3আন্তর্জাতিক ডেস্ক : উস্কানিমূলক কর্মকাণ্ড চলতে থাকলে ইরানে ভয়াবহ হামলার হুমকি দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। সিরিয়া থেকে মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের উদ্যোগের মধ্যেই সোমবার মন্ত্রিসভার বৈঠকে নতুন করে যুদ্ধের হুঁশিয়ারি দেন তিনি।

এর মধ্যেই, চাপ প্রয়োগের মার্কিন নীতি প্রতিহত করতে বিশ্ববাসীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন ইরানি পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাভেদ জারিফ। সৌদি আরবের সঙ্গে মতপার্থক্য নিরসনে রিয়াদ সফরের জন্য প্রস্তুত বলেও জানান তিনি।

রুশ প্রেসিডেন্টে ভ্লাদিমির পুতিনের সৌদি আরব সফরের পর থেকে কপালে চিন্তার ভাঁজ যুক্তরাষ্ট্রের। পুতিনের রিয়াদ সফরে স্পষ্ট হয়েছে মধ্যপ্রাচ্যে প্রভাব বাড়াতে চায় মস্কো। রিয়াদও মস্কোর দিকে ঝুঁকছে, এমন খবরও বেরিয়েছে গণমাধ্যমে। এরমধ্যেই সৌদি আরব সফরে গেলেন মার্কিন প্রতিরক্ষামন্ত্রী মার্ক এসপার। সোমবার রিয়াদ পৌঁছালে তাকে স্বাগত জানান সৌদি উপপ্রতিরক্ষামন্ত্রী প্রিন্স খালিদ বিন সালমান।

এদিন, মন্ত্রিসভার সঙ্গে ট্রাম্পের বৈঠকেও গুরুত্ব পায় মধ্যপ্রাচ্য ইস্যু। ট্রাম্প জানান, তিনি যুক্তরাষ্ট্রকে যুদ্ধের কবল থেকে মুক্ত করতে চান। একইসময়ে ইঙ্গিত দিয়েছেন, ইরানের উস্কানিমূলক আচরণের পরিবর্তন না হলে, তেহরানের বিরুদ্ধে যুদ্ধে জড়াতে পারে ওয়াশিংটন।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেন, ‘যুদ্ধের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের প্রস্তুতি এখন যে কোনো সময়ের চেয়ে ভালো। ইরান যদি কিছু করে, তাদের এমনভাবে আঘাত করা হবে, যার ভয়াবহতা তারা কখনো দেখনি। তেহরানকে কঠোর জবাব দেয়ার জন্য আমরা প্রস্তুত।’

এদিকে, সৌদি আরবের আহ্বানে রিয়াদ ও তেহরানের সঙ্গে মধ্যস্থতায় কাজ করছেন পাকিস্তান প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। সম্প্রতি ইরান সফর করে রিয়াদ গিয়ে রাজপরিবারকে বিস্তারিত জানিয়েছেন তিনি। এ অবস্থায়, রিয়াদ-তেহরানের দীর্ঘদিনের মতপার্থক্য কাটিয়ে উঠতে সৌদি আরব সফরে প্রস্তুত বলে জানিয়েছেন ইরানি পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাভেদ জারিফ। আহ্বান জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের একতরফানীতি প্রতিহত করারও।

ইরানি পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাভেদ জারিফ বলেন, ‘মানবতার জন্য বহুমতবাদ খুবই জরুরি। অথচ গতকয়েক দশক ধরে এ নীতি উপেক্ষিত। যুক্তরাষ্ট্রের একতরফানীতি কোনোভাবেই বাস্তবায়ন করতে দেয়া হবে না। এছাড়া, সৌদি আরবের সঙ্গে মতপার্থ্যক নিরসনে প্রস্তুত ইরান।’

এরমধ্যেই, লোহিত সাগরে ইরানি তেল ট্যাংকারে ক্ষেপণাস্ত্র হামলার ঘটনা তদন্তে জাতিসংঘের সহযোগিতা চেয়েছে তেহরান। গত ১১ অক্টোবর সৌদি আরবের জেদ্দা বন্দরের কাছে হামলার কবলে পড়ে ইরানি ট্যাংকারটি।



জুমবাংলানিউজ/এসআর

সর্বশেষ সংবাদ




আপনি আরও যা পড়তে পারেন


Add Comment

Click here to post a comment

সর্বশেষ সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ