ইতিহাস ট্র্যাভেল

চান্দামারী মসজিদ: দৃষ্টিনন্দন মেহরাব সমৃদ্ধ মুঘল আমলের ঐতিহ্যবাহী স্থাপত্য

জুমবাংলা ডেস্ক: কুড়িগ্রাম জেলার রাজারহাট উপজেলার একটি ঐতিহ্যবাহী দর্শনীয় স্থান হচ্ছে চান্দামারী মসজিদ এটি রাজারহাট উপজেলার চকিরপাশার ইউনিয়নের চান্দামারী গ্রামে “চান্দামারী মসজিদটি” অবস্থিত। উপজেলা সদর হতে ৪ কিঃমিঃ দক্ষিন পশ্চিমে অবস্থিত।  মসজিদটি কতো বছর পুর্বে তৈরী করা হয়েছিল তার সঠিক কোন তথ্য পাওয়া জায়নি, তবে স্থাপনাটির স্থাপত্য শৈলী প্রাচীন মুঘল আমলের স্থাপনার সঙ্গে মিল আছে। স্থানীয়রা মনে করেন মসজিদটি ১৬ বা ১৭ শতকে নির্মান করা হয়েছিল। সে অনুযায়ী এটি প্রায় ৫০০ শত বছরের পুরাতন একটি স্থাপত্য।

 

এই মসজিদটি দৈর্ঘ্যে ৪০ ফুট এবং প্রস্থে ২০ ফুট। এর নির্মাণকাজে ভিসকাস নামে এক ধরনের আঠালো পদার্থ ব্যবহার করা হয়েছে। মসজিদের সামনের দিকে পাঁচ ফুট উঁচু তিনটি বড় দরজা রয়েছে । ওপরে তিনটি বড় গম্বুজ আছে যার ব্যাসার্ধ প্রায় ৫.৫০ফুট। গম্বুজ গুলোর গায়ে দৃষ্টিনন্দন নকশা করা আছে। চার কোণায় চারটি মাঝারি আকৃতির মিনার ও চারদিকে ঘিরে আছে আরো ষোলটি ছোট গম্বুজ। ভিতরের দিকে তিনটি মেহরাব আছে।মসজিদের গায়ে অনেকগুলো খিলান আছে। এ ছাড়া বায়ু চলাচলের জন্য উত্তর ও দক্ষিণ দিকে একটি করে জানালা আছে। মসজিদটির সামনে একটি বড় আকৃতির পুকুর আছে।

নির্মাণ শৈলী ও শিল্প বৈশিষ্ট্য অনুযায়ী সুলতানী আমলের শিল্প বৈশিষ্ট্য ও মোগল সহাপত্যকলার সমন্বয় ঘটেছে।প্রত্নতাতিক মতে মোগল আমলের এই মসজিদটির নির্মাণকাল আনুমানিক ১৫৮৪-১৬৮০ খ্রিটাব্দের মধ্যবর্তী সময়ে। এর গায়ের নকশা গুলো মোঘল আমলের স্থাপত্য কৌশল ও শৈলীর অনন্য দৃষ্টান্ত।

কিভাবে যাওয়া যায়: সড়ক পথে ঢাকা হতে কুড়িগ্রামের দূরত্ব ৩৪৮ কিলোমিটার এবং রেলপথে ঢাকা হতে কুড়িগ্রাম রেল স্টেশনের দূরত্ব ৫৮৫ কিলোমিটার। ঢাকার গাবতলী, সায়েদাবাদ, আসাদগেট, শ্যামলী, মহাখালী, মিরপুর বাস স্টেশন থেকে কুড়িগ্রামে আসার সরাসরি দুরপাল্লার এসি ও নন-এসি বাস সার্ভিস আছে; এগুলোতে সময় লাগে ৬.৩০ হতে ৮.০০ ঘন্টা।

ঢাকার কমলাপুর রেল স্টেশন থেকে ট্রেনে সরাসরি, অথবা লালমনিরহাট অভিমুখী ট্রেনে রংপুরের কাউনিয়া এসে সেখান থেকে সড়ক পথে কুড়িগ্রাম আসা যায়। কমলাপুর রেল স্টেশন থেকে প্রতিদিন একাধিক ট্রেন কুড়িগ্রাম – কাউনিয়া পথে যাতায়ত করে।

কুড়িগ্রামে কোনো বিমানবন্দর না-থাকায় এখানে সরাসরি আকাশ পথে আসা যায় না, তবে ঢাকা থেকে সরাসরি বিমান যোগাযোগ ব্যবস্থা রয়েছে সৈয়দপুর বিমানবন্দরের সাথে; ঢাকা থেকে সৈয়দপুর এসে সেখান থেকে সড়কপথে কুড়িগ্রাম আসা যায়। বাংলাদেশ বিমান, জেট এয়ার, নোভো এয়ার, রিজেন্ট এয়ার, ইউনাইটেড এয়ার – প্রভৃতি বিমান সংস্থার বিমান পরিষেবা রয়েছে ঢাকা থেকে সৈয়দপুর আসার জন্য।

কুড়িগ্রাম বাস স্ট্যান্ড এ নেমে অটো রিক্সা যোগে রাজারহাট উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ের কাছে গিয়ে খোঁজ করলে পাওয়া যাবে মসজিদটি ।


জুমবাংলানিউজ/ওয়াইপি




আপনি আরও যা পড়তে পারেন



Add Comment

Click here to post a comment