আন্তর্জাতিক

নীল নদের তীরে সুরক্ষিত কফিন

236542আন্তর্জাতিক ডেস্ক : মিসরের নীল নদের পশ্চিম তীরে পাওয়া গেছে প্রাচীন ২০টি সম্পূর্ণ সুরক্ষিত কাঠের কফিন। সম্প্রতি পুরার্কীতির মধ্যে এটাই সবচেয়ে বড় ও গুরুত্বপূর্ণ পুরতাত্ত্বিক নিদর্শন।

দেশটির প্রত্নতত্ত্ব বিষয়ক মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, দক্ষিণ মিসরের লুক্সরের ‘বিশাল এক গুপ্তস্থান’ থেকে প্রত্নতাত্ত্বিকরা প্রাচীন মিসরীয়দের সম্পূর্ণ আটকানো ২০টির বেশি কফিন উদ্ধার করেছেন। মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতির পরিপ্রেক্ষিতে বুধবার আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম সিএনএন এ তথ্য নিশ্চিত করেছে। জানা যায়, প্রায় অক্ষত অবস্থায় এ কফিনগুলো আবিষ্কৃত হয়েছে।

নতুন আবিষ্কার হওয়া এ কফিনগুলোর রং ও অলঙ্কারণের কোনো রূপ পরিবর্তন হয়নি। কফিনগুলোর উজ্জ্বল রং এখনও অটুট রয়েছে, রয়েছে নজরকাড়া নকশা। নীল নদের পশ্চিম তীরে আল-আসায়েফে প্রাচীন মিসরীয়দের সমাধিস্থান থেকে এ কফিনগুলো আবিষ্কার করা হয়। সমাধির দুই স্তরের বেষ্টনী ভেদ করে উদ্ধার করা হয়েছে কফিনগুল।

নীল নদের পশ্চিমতীরে পাওয়া প্রাচীন ২০টি সম্পূর্ণ সুরক্ষিত কাঠের কফিন ১৫৩৯ খ্রিস্টপূর্ব থেকে মিসর শাসনকারী ১৮তম ফারাও রাজবংশের শাসনামলে আল-আসায়েফের এ সমাধিস্থানটি ব্যবহৃত হতো। প্রাচীন ফারাওদের সমকালীন মিসরীয় অভিজাত শ্রেণি ও উচ্চপদস্থ রাজ-কর্মচারীদের এ স্থানে সমাধি করা হতো। তবে কফিনগুলো ঠিক কত আগের, তা এখনও পর্যন্ত জানা যায়নি।

শনিবার (১৯ অক্টোবর) লুক্সরে প্রত্নতত্ত্ব বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে অনুষ্ঠেয় এক প্রেস কনফারেন্সে এ বিষয়ে বিস্তারিত তথ্যের আশা করা যাচ্ছে। কফিনগুলো আবিষ্কারের পর বুধবার মিসরীয় প্রত্নতত্ত্ব বিষয়ক মন্ত্রী খালেদ আল-আনানি ও প্রত্নতত্ত্ব বিষয়ক সর্বোচ্চ কাউন্সিলের সেক্রেটারি জেনারেল মোস্তফা ওয়াজিরি স্থানটি পরিদর্শন করেছেন।



জুমবাংলানিউজ/এসআর

সর্বশেষ সংবাদ




আপনি আরও যা পড়তে পারেন


Add Comment

Click here to post a comment

সর্বশেষ সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ