পজিটিভ বাংলাদেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি লাইফস্টাইল

বাংলাদেশে রাইড শেয়ারিং কোম্পানি

Dark Mode

জুমবাংলা ডেস্ক : যানজটের কারণে ঢাকায় বেশ জনপ্রিয় মোটর সাইকেলে রাইড শেয়ারিং৷ আবার কার কিংবা সিএনজিও মিলছে মোবাইল অ্যাপে৷ বাংলাদেশে রাইড শেয়ারিং কোম্পানিগুলো সম্পর্কে জেনে নিন ছবিঘরে৷

49070460_303

পাঠাও

২০১৬ সালের শেষে যাত্রা শুরু করে বাংলাদেশের বৃহত্তম রাইড শেয়ারিং কোম্পানি পাঠাও৷ পাঠাও জানিয়েছে, এই পর্যন্ত তাদের মোবাইল অ্যাপ প্রায় ৫০ লাখ বার ডাউনলোড হয়েছে৷ ৪ কোটির বেশি ট্রিপ দিয়েছেন পাঠাওয়ের চালকরা৷ রাইড শেয়ারিংয়ের পাশাপাশি খাবার ও পার্সেল সার্ভিস রয়েছে পাঠাওয়ের৷ নেপালেও চলছে তাদের কার্যক্রম৷

49070292_303

উবার

বাংলাদেশে অ্যাপভিত্তিক রাইড শেয়ারিং সেবা হিসেবে উবার যাত্রা শুরু করে ২০১৬ সালের ২২ নভেম্বরে৷ যদিও ২০১০ সালে প্রথম চালু হয় যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক প্রতিষ্ঠানটি৷ দক্ষিণ এশিয়ায় ৩৩তম শহর হিসাবে ঢাকায় উবার সেবা চালু হয়৷

49070716_303

স্যাম

২০১৬ সালের ৭ মে বাংলাদেশের প্রথম অ্যাপভিত্তিক চালু হয়েছিল রাইড শেয়ারিংয়ের সেবা ‘শেয়ার এ মোটর সাইকেল বা স্যাম’৷ তবে, সেভাবে জনপ্রিয় হতে পারনি এই কোম্পানিটি৷

49070831_303

বাডি

একাধিক যাত্রী নিয়ে বাংলাদেশে প্রথম রাইড শেয়ারিং সেবা ‘বাডি’৷ এতে কোম্পানির গাড়িতে একাধিক ব্যক্তি গন্তব্যের পথ ধরতে পারেন৷ ছয় থেকে ১০ জন যাত্রীকে এক গাড়িতে সেবা দিচ্ছে বাডি৷ সেবাটি পাওয়া যায় মোবাইল অ্যাপে৷

49070488_303

নারীদের ‘ওবোন’

নারীদের জন্য ২০১৮ সালের ২৮ এপ্রিল চালু হয় কেবল নারী চালকদের মাধ্যমে পরিচালিত ‘ও বোন’ সেবা৷ শুরুতে ৫০ জন নারী রাইডার দিয়ে কার্যকর চালু হলেও এখন সংখ্যাটা বেড়েছে৷ ‘ও ভাই সলিউশনস লিমিটেড’ উদ্যোগ নিয়েছে এই প্ল্যাটফর্মের৷

49070803_303

ওভাই

রাইড শেয়ারিংয়ে নানাবিধ নামে সেবা চালু করেছে ‘ও ভাই সলিউশনস লিমিটেড’৷ নারীদের ‘ওবোন’-এর পাশাপাশি কোম্পানিটির রয়েছে মোটর সাইকেলের ক্ষেত্রে ‘ওভাই মটো’, ফোর-হুইলার প্রাইভেট কারের ‘ওভাই গাড়ি’, থ্রী হুইলার সিএনজি’র ‘ওভাই সিএনজি’ এবং মাইক্রো বাসের না ‘ওভাই মাইক্রো’ সেবা৷

49070626_303

সহজ

অনলাইনে বাস টিকেট বিক্রির কার্যক্রম নিয়ে ২০১৪ সালে সহজ ডটকমের যাত্রা শুরু হয়৷ ২০১৮ সালের শুরুতে কোম্পানিটি চালু করে মোটর সাইকেলে রাইড শেয়ারিং সেবা৷ এরপর প্রাইভেট কারে রাইড শেয়ারিংয়ের দিকে যায় তারা৷

49070473_303

পিকমি

২০১৮ সালের ১ সেপ্টেম্বর থেকে ঢাকায় যাত্রা শুরু করে রাইডশেয়ারিং কোম্পানি ‘পিকমি’৷ মোবাইল অ্যাপে মোটরসাইকেল ও কারের পাশাপাশি স্কুটির রাইড শেয়ারিং সেবাও দেয় তারা৷

49070358_303

মার্কেটে আরো আছে যারা

বাংলাদেশে ২০টির মতো রাইড শেয়ারিং কোম্পানি আছে৷ ‘চলো’, ‘মুভ’, ‘ঢাকা মোটো’, ‘বাহন’, ‘আমার বাইক’, ‘ট্যাক্সিওয়ালা’, ‘আমার রাইড’, ‘আমার বাইক’, ‘ডাকো’, ‘গতি’ ও ‘হ্যালো রাইড’ প্রভৃতি রয়েছে এর মধ্যে৷

    


জুমবাংলানিউজ/এইচজে

সর্বশেষ সংবাদ




আপনি আরও যা পড়তে পারেন


জনপ্রিয় খবর

Add Comment

Click here to post a comment

সর্বশেষ সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

জনপ্রিয় খবর