জাতীয় শেয়ার বাজার

শেয়ারবাজার চাঙ্গা করতে ১০ হাজার কোটি টাকার তহবিল নিয়ে নানা গুঞ্জন

Dark Mode

114121money_600পুঁজিবাজার ডেস্ক : শেয়ারবাজার চাঙ্গা করতে ১০ হাজার কোটি টাকার তহবিল দেয়া হচ্ছে, এ নিয়ে নানা গুঞ্জন চলছে।

স্টেকহোল্ডাররা বলছেন, পুঁজিবাজারকে সাপোর্ট দিতে ও স্টেকহোল্ডারদের সক্ষমতা বাড়াতে স্বল্প সুদে ১০ হাজার কোটি টাকার ফান্ড খুবই জরুরি। ৬ বছর মেয়াদে ৩ শতাংশ সুদে এই অর্থ পেলে স্টেকহোল্ডারদের সক্ষমতা বাড়ার পাশাপাশি পুঁজিবাজার স্থিতিশীলতায় ভূমিকা রাখতে পারবে বলে আশা করছেন তাঁরা।

তাই বাজার চাঙ্গা করতে সরকারের কাছে ১০ হাজার কোটি টাকা অর্থের জোগান চেয়েছে ব্রোকারেজ হাউস ও মার্চেন্ট ব্যাংকগুলো।  পুঁজিবাজারে মন্দাবস্থায় ক্রমাগত লোকসানে বিনিয়োগ অনুকূল পরিস্থিতিতেও হাতে পর্যাপ্ত অর্থ না থাকায় ব্রোকারেজ হাউস ও প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়ায় তাঁরা এ প্রস্তাব দেন।  অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্রে এ তথ্য জানা যায়।

স্টেকহোল্ডারদের দাবি, বর্তমানে পুঁজিবাজারে নিম্নমুখিতার অন্যতম কারণ তারল্য সংকট। ক্রমাগত নিম্নমুখী অবস্থায় ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীরা আতঙ্কিত হয়ে লোকসান হলেও শেয়ার ছেড়ে দিচ্ছেন। অন্যদিকে লোকসান ও ফান্ড হাতে না থাকায় প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরাও সক্রিয় হতে পারছেন না। কাজেই এই সময়ে স্টেকহোল্ডার তথা পুঁজিবাজার স্থিতিশীলতায় ফান্ডের জোগান বাড়ানো খুবই প্রয়োজন বলে মনে করছেন তাঁরা।

ফান্ড পাওয়ার বিষয়ে তাঁদের যুক্তি হচ্ছে, কনজ্যুমার মার্কেটে কোনো নিত্যপণ্যের দাম বাড়লে বা অস্থিরতা সৃষ্টি হলে সরকার পণ্যের জোগান বাড়িয়ে স্থিতিশীলতা ফেরায়। সম্প্রতি পেঁয়াজের দাম বাড়লে টিসিবির মাধ্যমে পেঁয়াজ বিক্রি করে বাজার স্থিতিশীল করার উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। ঠিক তেমনিই সাম্প্রতিক মন্দাবস্থায় পুঁজিবাজারের লাখ লাখ বিনিয়োগকারী মূলধন নিয়ে শঙ্কায় পড়েছেন। প্রাতিষ্ঠানিক বা বড় বিনিয়োগকারীরা ফান্ডের জোগান পেলে বাজারকে সাপোর্ট দিতে পারবেন। সর্বোপরি ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীরা উপকৃত হওয়ার পাশাপাশি পুঁজিবাজার উপকৃত হবে।



জুমবাংলানিউজ/পিএম

সর্বশেষ সংবাদ




আপনি আরও যা পড়তে পারেন


জনপ্রিয় খবর

Add Comment

Click here to post a comment

সর্বশেষ সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

জনপ্রিয় খবর