আন্তর্জাতিক

সৌদি আরবের ৩টি সামরিক ঘাঁটি দখলের দাবি করলো হুতি বিদ্রোহী গোষ্ঠী

Dark Mode

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ইয়েমেনের হুতি বিদ্রোহী গোষ্ঠীর দাবি সাম্প্রতিক হামলায় সৌদি আরবের তিনটি সামরিক ঘাঁটি এবং ১৫০ বর্গকিলোমিটার এলাকা নিয়ন্ত্রণে নিয়েছে তারা। হুতি মুখপাত্র ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ইয়াহিয়া সারি মঙ্গলবার বিকালে ইয়েমেনের রাজধানী সানায় এক সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি করেন।

161240_bangladesh_pratidin_ggxএক বিবৃতিতে হুতি মুখপাত্র বলেন, এই অভিযানে সৌদি সামরিক ঘাঁটি দখল এবং সেখান থেকে প্রচুর পরিমাণে অস্ত্র ও গোলাবারুদ উদ্ধার করা হয়েছে। তিনি আরও বলেন, আমাদের সামরিক বাহিনী বিভিন্ন ধরনের অভিযান অব্যাহত রেখেছে।

এদিকে, সৌদি আরবের আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা শক্তিশালী করার অজুহাতে দেশটিতে নতুন করে সমরাস্ত্র পাঠাচ্ছে মার্কিন প্রতিরক্ষা দফতর পেন্টাগন। সম্প্রতি ইয়েমেনের হুতি আনসারুল্লাহ যোদ্ধাদের সমর্থিত সেনাবাহিনীর ড্রোন হামলায় দু’টি সৌদি তেল স্থাপনার মারাত্মক ক্ষতি হয় এবং দেশটির তেল উৎপাদন অর্ধেকে নেমে আসে। এ অবস্থায় সৌদি আরবের অবকাঠামো রক্ষা করতে ব্যর্থ হওয়ায় আমেরিকা তীব্র সমালোচনার সম্মুখীন হয়।
পেন্টাগনের মুখপাত্র জনাথন হাফম্যান বৃহস্পতিবার এক সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছেন, সৌদি আরবে একটি প্যাট্রিয়ট ব্যবস্থা, চারটি সেন্টিনেল ব্যবস্থা এবং সঙ্গে এগুলো পরিচালনার জন্য ২০০ সদস্যের একটি সামরিক দল সৌদি আরবে পাঠানো হবে।
ওয়াশিংটন দাবি করছে, থ্রিডি আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা- সেন্টিনেল দিয়ে তুলনামূলক কম উচ্চতায় উড়ে আসা হুমকি প্রতিরোধ করা সম্ভব। সেন্টিনেল দিয়ে হেলিকপ্টার, ড্রোন ও ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্রের হামলা কার্যকরভাবে প্রতিরোধ করতে পারবে বলে দাবি করছে পেন্টাগন।

ইয়েমেনে হুতি যোদ্ধারা সম্প্রতি ঘোষণা করেছেন, তারা সৌদি আরবের তেল স্থাপনায় ১০টি ড্রোনের সাহায্যে সাম্প্রতিক হামলা চালিয়েছেন। তবে সৌদি আরব দাবি করছে, ইরান ওই হামলা চালিয়েছে। সৌদির ওই অভিযোগ কঠোর ভাষায় প্রত্যাখ্যান করেছে তেহরান।

কারা এই হুতি?
ইয়েমেনের হুতি হচ্ছে একটি শিয়া সম্প্রদায়। যারা দেশটির রাজধানী সানা ও উত্তরাঞ্চলে বসবাস করে থাকে, এই হুতিদের একটি অংশ ইয়েমেনের সীমান্তবর্তী সৌদি আরবের দক্ষিণাঞ্চলীয় জেলা নাজরানেও বসবাস করে থাকে।

ইয়েমেনে ৯৯.৫ শতাংশ মুসলমান, যার মধ্য ৭০ শতাংশ সুন্নী ও ৩০ শতাংশ শিয়া। এই ৩০ শতাংশ শিয়ারাই মুলত হুতি সম্প্রদায়। এই হুতিদের ইরানের শিয়া সরকার, ইরাকের শিয়া সরকার ও লেবাননের হিজবুল্লার সহযোগী সংগঠন বলে মনে করা হয়।



জুমবাংলানিউজ/এএসএমওআই

সর্বশেষ সংবাদ




আপনি আরও যা পড়তে পারেন


জনপ্রিয় খবর

1 Comment

Click here to post a comment

সর্বশেষ সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

জনপ্রিয় খবর